Menu

সর্বশেষ


এম আর আলী টুটুল, সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি: স্বাধীনতার দীর্ঘ ৪৯ বছর পর নীলফামারীর সৈয়দপুরে শহীদ ডাঃ জিকরুল হকের ছোট ভাই, সৈয়দপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মহসীনুল হক মহসীনের বাবা শহীদ আমিনুল হকের ৪৯ তম শাহাদাৎ বার্ষিকী পালন করা হয়েছে।

এ উপলক্ষে সৈয়দপুর পৌরসভা সড়কের শ্যামলালের গোডাউনে অস্হায়ী বেদিতে স্বরন সভা ও পুস্প মাল্য অর্পন করা হয়। এ সময় শহীদের স্মরণে ১ মিনিট নিরবতা কর্মসূচী পালন করা হয়।

সৈয়দপুরের প্রথম শহীদ মাহাতাব বেগের সন্তান মির্জা সালাউদ্দিন বেগের সভাপতিত্বে ও শহীদ পরিবারে সদস্য তামিম রহমানের সঞ্চালনায় স্মরণ সভায় বক্তব্য রাখেন আওয়ামীলীগ সৈয়দপুর উপজেলা শাখার সাধারন সম্পাদক মহসীনুল হক মহসীন, পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম বাবু, আওয়ামীলীগ নেতা মেট্রো মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার এ কে এম রাশেদুজ্জামান, বঙ্গবন্ধু পরিষদের সহ সভাপতি মোনায়মুল হক, শহীদ পরিবারের সন্তান সাংবাদিক এম আর আলম ঝন্টু, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা (১৯৭১) আতাউর রহমান ময়না, বাঙ্গালীপুর ইউনিয়নের আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক প্রভাষক মেহেদী হাসান সুরোজ মন্ডল, শহীদ সন্তান ও সৈয়দপুর উপজেলা হিন্দু কল্যান পরিষদের সাধারন সম্পাদক অমিত কুমার আগরওয়ালা নিক্কি, তাঁতী লীগের পৌর সভাপতি মাসুদুর রহমান লেলিন, উপজেলা শাখার সাধারন সম্পাদক মোস্তফা কামালসহ আরো অনেকে। স্মরণ সভা শেষে পুষ্প মাল্য অর্পন করেন সৈয়দপুর উপজেলা আওয়ামীলীগ, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড, প্রজন্ম৭১, উপজেলা পরিষদের পক্ষে প্রতিনিধিবৃন্দ।

উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালে ২৮ শে জুন শহীদ আমিনুল হককে টুকরো টুকরো করে কেটে শ্যামলালের গোডাউনে পুঁতে রাখে পাক হানাদার বাহিনী ও তাদের দোসর স্থানীয় উর্দুভাষীরা। সৈয়দপুর পৌরসভার প্রতিষ্ঠাকালীন ২ নং সদস্য ও ততকালীন কাউন্সিলর এবং আওয়ামীলীগ নেতা আমিনুল হক বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষন তার নিজ রেকোর্ডারে রেকোর্ড করে তা পাড়া-মহল্লায়, হাটে-বাজারে শুনিয়ে বেড়িয়ে লোকজনকে স্বাধীনতা তথা মুক্তিযুদ্ধের জন্য উদ্বুদ্ধ করতেন।

এ কারনে তাকে রাজাকারা ধরে নিয়ে গিয়ে পাক সেনাদের দ্বারা সৈয়দপুর বিমানবন্দর নির্মাণ কাজে নিয়োজিত করেছিল। অক্লান্ত পরিশ্রম করেও কোন মজুরী না দিয়ে এ কাজে নিয়োজিতদের অমানবিক নির্যাতন করা হত। ১৯৭১ এর ২৮ জুন বিমানবন্দরের কাজ শেষে শহরের নতুন বাবুপাড়ার বাসায় ফেরার পথে বর্তমান শহীদ তুলশীরাম সড়কের সিঙ্গার শো-রুমের সামনে আসামাত্র তাকে আটক করে রাস্তার পাশের শ্যামলাল দত্তের ভবনে নিয়ে গিয়ে চোখ উপড়ে, নাক-কান কেটে, জবাই করে পৌশাচিকভাবে হত্যা করে উর্দুভাষীরা।

বিপি/আর এল