Menu

সর্বশেষ


ঝিনাইদহ থেকে সংবাদদাতা: ঝিনাইদহ করোনা ভাইরাসের মধ্যেও ধর্ষণ থেমে নেই গতকাল পৌর এলাকার পবহাটী গ্রামের মৃতঃ জলিল মন্ডলের ছেলে বাচ্চু মন্ডলের বিরুদ্ধে বাড়িওয়ালার স্ত্রীর সহযোগিতায় ঐ বাড়ির এক ভাড়াটিয়ার স্ত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। পুলিশ বাচ্চু মিয়াকে গ্রেফতারও করেছে।

এ ঘটনায় ধর্ষিতা নিজেই বাদী হয়ে আজ সোমবার (৮জুন) দুপুরে ঝিনাইদহ সদর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেছেন। জানা গেছে, ধর্ষিতার স্বামী ব্যবসার সুবাদে ঝিনাইদহ পৌর এলাকার পবহাটী গ্রামের মোঃ ইকবাল হোসেনের বাড়িতে ভাড়া থাকেন। ঘটনার রাত্রে কাজের ব্যস্ততার কারণে ধর্ষিতার স্বামী বাসায় না থাকার সুযোগে ধর্ষক বাচ্চু মিয়া তার অনৈতিক লালসা চরিতার্থ করার জন্য বাড়িওয়ালার স্ত্রী মোছাঃ রেশমা খাতুনের সাথে যোগ সাজসে ধর্ষিতার ঘরে প্রবেশ করে এবং বিভিন্ন প্রকার ভয় ভিতি দেখিয়ে তাকে ধর্ষণ করে।

এ ঘটনায় ধর্ষিতা জানিয়েছেন, তার স্বামী বাড়ি না থাকার কারণে একই বাসার ভাড়াটিয়া আলমগীর হোসেনের স্ত্রী মোছাঃ আখিরন নেছাকে তার কাছে নিয়ে ঘুমাই। হঠাৎ রাত আনুমানিক ১১ টার দিকে বাড়িওয়ালার স্ত্রী রেশমা তার দরজায় নক করে এবং দরজা খুলতে বলে। দরজা খুলার সাথে সাথে ধর্ষক বাচ্চু রুমের মধ্যে প্রবেশ করে এবং বাড়িওয়ালা রেশমা বেগম পাশে থাকা আখিরনকে ধাক্কা মেরে বাহিরে বের করে দিয়ে দরজা বন্ধ করে দেয়। এরপর বাচ্চু তাকে বিভিন্ন প্রকার ভয় ভিতি দেখিয়ে তাকে ধর্ষণ করে।

ঘটনার বিষয়ে ঝিনাইদহ সদর থানার ওসি মিজানুর রহমান বলেন, খবর পাওয়া মাত্রই আমরা ধর্ষককে আটক করেছি। পরে ধর্ষকের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে নারী ও শিশু নির্যাতন আইন ২০০০ (সংশোধনি-২০১৩) এর ৯ (১)/ ৩০ ধারা অনুযায়ি ধর্ষক বাচ্চু ও বাড়িওয়ালা রেশমা খাতুনের নামে মামলা হয়েছে।

বিপি/কেজে