Menu

সর্বশেষ


জবি থেকে সংবাদদাতা: বিশ্ব পরিবেশ দিবস ২০২০ উপলক্ষে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) এর ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের উদ্যোগে ‘’পোস্ট কোভিড-১৯: নিউ ওয়ার্ল্ড অর্ডার, ইনভাইরোমেন্ট, এন্ড ডেভোলপমেন্ট’’ শীর্ষক একটি ভার্চুয়াল সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শুক্রবার (৫ জুন) রাত ৯ টায় সেমিনারটি শুরু হয়। এবছর বিশ্বব্যাপী পরিবেশ দিবসের স্লোগান ছিল It’s Time for Nature. অর্থাৎ প্রকৃতিকে বাঁচানোর এখনই সময় (বাংলাদেশ পরিবেশ অধিদপ্তর)। উক্ত স্লোগানের সাথে করোনা মাহামারী বিষয়টি অর্ন্তভুক্ত করে এবারের সেমিনারের বিষয়বস্তু ঠিক করা হয়। সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে সংযুক্ত ছিলেন জবি উপাচার্য অধ্যাপক ড.মীজানুর রহমান।

সেমিনারে ‘টাইম ফর ন্যাচার উইথ ভাইরাস’ শীর্ষক মুল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক এস দারা শামসুদ্দীন। মূল প্রবন্ধে তিনি বলেন, আমার মানুষ প্রকৃতির ছোট একটা পার্ট যারা ইকোলজিক্যাল পিরামিডের উপর বসে আছি। এই ধরত্রীর জীববৈচিত্র্য আমাদের মাধ্যমেই সবচেয়ে বেশি ক্ষতি সাধন হচ্ছে। প্রকৃতির উপর আমাদের র্নিভরতা বা অত্যাচার না কমালে মহামারীসহ এরূপ সমস্যা আরও আসবে। তবে এখন এই লকডাউনে কিছুটা পুষিয়ে নিচ্ছে। যদিও নেচারকে সময় দিলে সে নিজেই ঠিক করে নেয়। পোস্ট কোভিড-১৯ সিচুয়েশনে আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে পরিবেশ বান্ধব প্রজন্ম হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।

সেমিনারে বিশেষ বক্তা হিসেবে ’পোস্ট কোভিড-১৯: নিউ ওয়ার্ল্ড অর্ডার’ বিষয়ে বক্তব্য রাখেন দিল্লী বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অব ইকোনোমিক্স এর অধীন ভূগোল বিভাগের অধ্যাপক ড.অঞ্জন সেন। করোনা পরবর্তী বিশ্বব্যবস্থাপনা নিয়ে দিকনির্দেশনামূলক সমীক্ষা উপস্থাপন করে বলেন, করোনা পরবর্তীতে বিশ্বব্যস্থাপনা পাওয়ার অব ব্যালেন্স শিফট হবে। তা পশ্চিম থেকে র্পূব দিকে স্থানাস্তরিত হবে। পাশাপাশি দ্বন্ধ-সংঘাতও বাড়বে।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান বলেন, ‘কোভিড-১৯ পরবর্তী পৃথিবীতে মানবজাতিকে আরও সহনসীলভাবে পরিবেশের সাথে খাপ খাইয়ে চলতে হবে । আমাদের অর্থনীতি টিকিয়ে রাখবে অভ্যন্তরীন বাজারে সক্রিয় বাংলাদেশের মধ্যবিত্ত প্রায় ৬ কোটি মানুষ, যা অনেক দেশের মোট লোক সংখ্যার চেয়ে বেশি।’

সমাপনী বক্তব্যে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মোঃ মনিরুজ্জামান পরিবেশের সাথে মানুষের পারস্পারিক নির্ভরশীলতার উপর জোর দিয়ে বলেন, পরিবেশের ক্ষতি করে মানুষ ভালভাবে বাঁচতে পারবে না। কোভিড-১৯ পরবর্তী দক্ষিণ এশিয়া বিশেষ করে বাংলাদেশের কৃষক ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর সাহস ও শক্তিই আমাদেরকে বাঁচিয়ে রাখবে। বিগত বিভিন্ন দুর্যোগে আমাদের সে অভিজ্ঞতা রয়েছে।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মোহাম্মাদ আব্দুল কাদেরের সঞ্চালনায় সেমিনারে আলোচক হিসেবে আরও সংযুক্ত ছিলেন ইউএনডিপি এর এ্যাসিস্টেন্ট কান্ট্রি ডিরেক্টর জনাব মো. খোরশেদ আলম এবং বাংলাদেশ ভূগোল সোসাইটির সভাপতি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের অধ্যাপক ড. হাফিজা খাতুন প্রমুখ।

বিপি/কেজে