Menu

সর্বশেষ


বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক মানস

—অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান

ইতিহাস সাক্ষ্য দেয়, এই বাঙালি জাতির কোনো দিনই একটি স্বাধীন রাষ্ট্রের মালিকানা ছিল না। জাতিভিত্তিক রাষ্ট্রের চেতনা বলতে যা বোঝায়, তার কোনো কিছুই ছিল না। বাঙালি জাতি-রাষ্ট্রের স্বপ্ন কখনোই স্পষ্ট রূপ নেয়নি। একমাত্র ১৯৭১ সালে স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয় এই জনপদে ও বাঙালির ইতিহাসে প্রথম স্বাধীন জাতিরাষ্ট্র। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এই রাষ্ট্রের স্থপতি।

জার্মান দার্শনিক ফ্রেডরিখ হেগেলের (১৭৭০-১৮৩১) ভাষায়, ‘মানুষের সর্বশ্রেষ্ঠ সৃষ্টি হচ্ছে রাষ্ট্র সৃষ্টি করা।’ বাংলাদেশের অভ্যুদয়ে বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্ব ছিল ইতিহাসের অনিবার্যতা। সাতই মার্চ ছিল বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বের সর্বশ্রেষ্ঠ দিনগুলোর একটি। বঙ্গবন্ধুর লক্ষ্য অর্জনের জন্য কৌশল ও কর্মপরিকল্পনার মধ্যে কোনো বিভ্রান্তি বা দোদুল্যমানতা ছিল না। ১ মার্চ পাকিস্তানের সেনাশাসক প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খান জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিয়ে ৩ মার্চ অনুষ্ঠিতব্য নবগঠিত পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের আহ্বানকৃত সভা স্থগিত করার পরক্ষণেই উত্তাল হতে থাকে ঢাকার রাজপথ। ২ মার্চ থেকে অসহযোগের ডাক দেন বঙ্গবন্ধু, পুরো দেশ অচল হয়ে পড়ে। ৩ মার্চ বঙ্গবন্ধু পল্টনে ঘোষণা করলেন, ৭ মার্চের জনসভায় তিনি জাতির উদ্দেশে বক্তব্য রাখবেন। দেশে-বিদেশে অনেকেই ধরে নিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু ঐদিন স্বাধীনতার ঘোষণা দেবেন।

৬ মার্চ বিশ্ববিখ্যাত ‘দ্য ডেইলি টেলিগ্রাফ’ পত্রিকার এক নিবন্ধে বলা হয়, শেখ মুজিব একতরফাভাবে স্বাধীনতা ঘোষণা করতে পারেন। ৭ মার্চ সকালে করাচি থেকে প্রকাশিত পত্রিকাগুলোতেও এমন আশঙ্কাই ব্যক্ত হয়েছিল। অনেক তথাকথিত বিশ্লেষক তাদের লেখায় ও বক্তৃতায় এখনো বলেন, শেখ মুজিব যদি সাতই মার্চ স্বাধীনতার ঘোষণা দিতেন, তাহলে লক্ষ জনতা ঢাকা সেনানিবাস আক্রমণ করত, এতেই অনেক কম মূল্যে আমরা স্বাধীনতা পেয়ে যেতাম। বঙ্গবন্ধুর ইতিহাস সচেতনতা এবং আন্তর্জাতিক রাজনীতির বাস্তবতার সম্যক ধারণা এত প্রগাঢ় ছিল যে তিনি কোনো অবস্থাতেই একতরফা স্বাধীনতা ঘোষণা (ইউডিআই) করে আমাদের স্বাধীনতার সংগ্রামকে বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলনের তকমা লাগানোর সুযোগ দেননি। দেশে দেশে বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলনের ব্যর্থতা এবং এসব আন্দোলনের আন্তর্জাতিকভাবে অগ্রহণযোগ্যতা সম্পর্কে বঙ্গবন্ধু অত্যন্ত সচেতন ছিলেন।

বিশ্ব পরিস্থিতি আমাদের কতটা প্রতিকূল ছিল, তা বোঝার জন্য একটা উদাহরণ দেওয়া যেতে পারে। আমাদের স্বাধীনতাযুদ্ধের সময় আমেরিকা, চীন ও ইসলামি দেশসমূহের বিরোধিতার কথাই বহুল প্রচারিত। ভারতসহ বিশ্বের গুটি কয়েক দেশ ছাড়া কেউই আমাদের ওপর চাপিয়ে দেওয়া যুদ্ধেও আমাদের পক্ষ অবলম্বন করেনি। এর একটি উদাহরণ হচ্ছে, ৭ ডিসেম্বর ১৯৭১ জাতিসংঘের ভোটাভুটিতে আমাদের বিপক্ষে ভোট দিয়েছিল ১০৪টি দেশ, পক্ষে মাত্র ১১টি আর ভোটদানে বিরত ছিল ১০টি দেশ। সাতই মার্চ বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতাযুদ্ধের সব প্রস্তুতির সার্বিক দিকনির্দেশনা দিলেও পরিপূর্ণ স্বাধীনতা ঘোষণার আনুষ্ঠানিকতাটি বাদ রাখেন। ২৫ মার্চে র রাতে জাতি যখন পাকিস্তানিদের একতরফা যুদ্ধের শিকার হলো, তখনই ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরেই স্বাধীনতা ঘোষণা করেন।

বঙ্গবন্ধু আক্রান্ত হওয়ার আগেই একতরফা স্বাধীনতা ঘোষণা করলে আমাদের কী পরিণতি হতো তার প্রমাণ হলো সাম্প্রতিক কালে স্পেনের কাছ থেকে কাতালোনিয়ার একতরফা স্বাধীনতা ঘোষণা। কাতালোনিয়ার স্বাধীনতার ঘোষণা করে ঐ দেশের নেতা কার্লেস পুজদেমন বিদেশে পালিয়ে যেতে বাধ্য হন। কিন্তু পৃথিবীর একটি দেশও একতরফাভাবে স্বাধীনতা ঘোষণাকারী কাতালোনিয়ার পাশে দাঁড়ায়নি বা দেশটিকে স্বীকৃতি দেয়নি। সাতই মার্চের ভাষণে বঙ্গবন্ধু সবই বলেছিলেন, শুধু একতরফা স্বাধীনতার ঘোষণাটি ছাড়া। ‘…তোমাদের কাছে অনুরোধ রইল। প্রত্যেক ঘরে ঘরে দুর্গ গড়ে তোলো। তোমাদের যা কিছু আছে তাই নিয়ে শত্রুর মোকাবিলা (আক্রমণ নয়) করতে হবে। …আমরা ভাতে মারব, আমরা পানিতে মারব…।’ যেমনটি পাওয়া যায় উইনস্টন চার্চিলের ৪ জুন ১৯৪০-এর ‘উই শ্যাল ফাইট অন দ্য বিচেস’ বক্তৃতায়, ‘…আমরা সাগরে লড়ব, মহাসগরে লড়ব… আমরা অবশ্যই লড়ব… আকাশে, আমরা আমাদের দ্বীপকে সুরক্ষা দেব… এতে যত ত্যাগই স্বীকার করতে হয়। আমরা সৈকতে লড়ব। আমরা অবশ্যই লড়ব, …মাঠে, রাস্তায়। আমরা অবশ্যই লড়ব পাহাড়ে; আমরা কখনো আত্মসমর্পণ করব না।’

বঙ্গবন্ধুর সাতই মার্চের ভাষণ এখন বিশ্ব ঐতিহ্যের অংশ। ২০১৭ সালের ৩০ অক্টোবর ইউনেস্কো এই ভাষণকে বিশ্ব ঐতিহ্যের অংশ করে নিয়েছে এবং ইন্টারন্যাশনাল মেমোরি অব ওয়ার্ল্ড রেজিস্ট্রারে অন্তর্ভুক্ত করেছে। বঙ্গবন্ধুর ভাষণ এখন শুধু বাঙালির নয়, সারা বিশ্বের তথা মানবসভ্যতার অহংকার। এই ভাষণ কালোত্তীর্ণ বিশ্ব ক্ল্যাসিক। বঙ্গবন্ধুর ভাষণে অনেক কিছুই রয়েছে, যা চলমান সমসাময়িক বিশ্বে খুবই প্রাসঙ্গিক। বিশ্বের দেশে দেশে আঞ্চলিক ও গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব নিরসনে সমঝোতাকে প্রথমে বেছে নিতে হবে। সমঝোতার সব পথ রুদ্ধ হলেই অন্য পথ ধরতে হবে। এ ব্যাপারে বঙ্গবন্ধু বলেছেন, ‘…আমরা আমাদের জীবন দিয়ে চেষ্টা করেছি…।’ রক্তক্ষয় ও হানাহানির পথে প্রথমেই না গিয়ে বরং এ পথ পরিহার করে সমঝোতার চেষ্টা বিশ্ববাসীর কাছে অনুকরণীয় হয়ে থাকবে।

গণতন্ত্র মানেই সংখ্যাগরিষ্ঠের মতকে প্রাধান্য দেওয়া নয়, এটা হচ্ছে বঙ্গবন্ধুর ভাষণের অন্যতম একটি শিক্ষা। বেশির ভাগ লোক যা বলবে, তা-ই গণতন্ত্র, এটা বঙ্গবন্ধুর গণতান্ত্রিক উপলব্ধি ছিল না। বঙ্গবন্ধুর ভাষায়, ‘…যদি কেউ ন্যায্য কথা বলে, আমরা সংখ্যায় বেশি হলেও একজন যদিও সে হয়, তার ন্যায্য কথা আমরা মেনে নেব।’ বঙ্গবন্ধুর গণতন্ত্র কেবল সংখ্যাগরিষ্ঠতার জোর নয়, বরং বঙ্গবন্ধুর গণতন্ত্র ছিল ন্যায্য কথার গণতন্ত্র। সেটা একজনে বলুক আর অল্প কয়েক জনে বলুক, বেশির ভাগ লোকে বলুক বা সবাই মিলে বলুক।

দুর্বল প্রান্তিক জনগোষ্ঠী বা সংখ্যালঘুদের ওপর অত্যাচার-নিপীড়ন আজকে বিশ্বের একটা অন্যতম সমস্যা। একটা সমাজের সংখ্যাগুরুদের দায়িত্ব হচ্ছে ক্ষুদ্র জনগোষ্ঠীর হেফাজত করা। যদিও মূলত পাকিস্তানিদের পক্ষাবলম্বনকারী বিহারিদের উপলক্ষ্য করেই বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, ‘…এই বাংলায় হিন্দু-মুসলিম, বাঙালি, অ-বাঙালি যারা আছে তারা আমাদের ভাই, তাদের রক্ষার দায়িত্ব আপনাদের উপর, আমাদের যেন বদনাম না হয়।’ বঙ্গবন্ধুর ভাষণের এই অংশটুকু কতটা কালোত্তীর্ণ তা আজকের বিশ্বের দিকে তাকালেই বোঝা যায়। ইরাক ও তুরস্কের কুর্দিদের বা মিয়ানমারের রোহিঙ্গাদের দুরবস্থার দিকে তাকালে আরো বেশি স্মরণে আসবে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ।

রামু, নাসিরনগর বা গাইবান্ধার ঘটনা পুনরাবৃত্তি রোধেও প্রয়োজন বঙ্গবন্ধুর এই দার্শনিক উক্তির অনুসরণ। বিপন্ন মানুষের পাশে দাঁড়ানোর শাশ্বত আহ্বান ছিল বঙ্গবন্ধুর ভাষণে। ১ মার্চ থেকেই উত্তাল হতে থাকে রাজপথ। সারাদেশে পাকিস্তানি বাহিনীর নির্বিচার গুলিতে হতাহত হয় অনেকেই। বঙ্গবন্ধু তার ভাষণে তাদের কথাও বলতে ভোলেননি। তিনি বলেন, ‘…আর যে সমস্ত লোক শহিদ হয়েছে, আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছে, আমরা আওয়ামী লীগের থেকে যদ্দুর পারি সাহায্য করতে চেষ্টা করব। যারা পারেন আমার রিলিফ কমিটিতে সামান্য টাকা-পয়সা পৌঁছে দেবেন।’

বঙ্গবন্ধু এক বাক্যে বাঙালির ভবিষ্যত্ রচনা করে বলেছিলেন, বাঙালিকে কেউ দাবায়ে রাখতে পারবে না। তার শুধু একটি উদাহরণ পদ্মা সেতু। দেশি ও বিদেশি ষড়যন্ত্রের কারণে কাল্পনিক দুর্নীতির অভিযোগ এনে পদ্মা সেতুর অর্থায়ন থেকে বিশ্বব্যাংক যখন সরে গেল, তখন এডিপি, জাইকাসহ আরো নানা উন্নয়ন সহযোগী পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন থেকে সরে যায়। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর কন্যা আজকের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দৃঢ়ভাবে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করলেন নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু করবেন, অনেকটা যেন বঙ্গবন্ধুর সাতই মার্চের বক্তব্যেরই প্রতিফলন, ‘…৭ কোটি মানুষকে দাবায়ে রাখতে পারবা না।’

রাজনীতি যারা করবেন, তারা ক্ষমতাকে ভোগ করার জন্য রাজনীতি করা ঠিক নয়। জনগণের জন্য আত্মত্যাগই হচ্ছে রাজনীতির মহত্ উদ্দেশ্য। মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠায় তাদের জীবনমান উন্নয়নে ভূমিকা রাখাই রাজনীতি। বঙ্গবন্ধু তার সারাটি জীবন মানুষের জন্য উত্সর্গ করেছেন, যৌবনের ১৩টি বছর জেলখানায় নির্জন প্রকোস্টে কাটিয়েছেন। ’৭০-এর সাধারণ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ বিজয়ের পরও ক্ষমতার সিঁড়িকে প্রত্যাখ্যান করে সাতই মার্চ বলেছেন, ‘…আমি প্রধানমন্ত্রিত্ব চাই না। আমরা এদেশের মানুষের অধিকার চাই।’

বঙ্গবন্ধু সাতই মার্চের ভাষণে স্বাধীনতার সংগ্রাম কথাটা বলেই ক্ষান্ত হননি, মুক্তির সংগ্রামের কথাটাও যোগ করেছিলেন, যুদ্ধের মুখোমুখি দাঁড়িয়েও বঙ্গবন্ধুর মনে মুক্তির সংগ্রামের তাত্পর্য লুকানো ছিল। বঙ্গবন্ধুর ভাষণে ‘স্বাধীনতা’ শব্দটি একবার উচ্চারিত হলেও ‘মুক্তি’ শব্দটি ব্যবহার করেছেন কয়েকবার, ‘…আজ বাংলার মানুষ মুক্তি চায়’, ‘…এদেশের মানুষ অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক মুক্তি পাবে’, ‘…যে পর্যন্ত আমার এই দেশের মুক্তি না হয়’, ‘…এদেশের মানুষকে মুক্ত করে ছাড়ব ইনশাল্লাহ’, ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম এবারে সংগ্রাম আমাদের স্বাধীনতার সংগ্রাম।’ স্বাধীনতার সংগ্রামের চেয়ে মুক্তির সংগ্রাম অনেক বেশি তাত্পর্যপূর্ণ। যদিও মুক্তির জন্য স্বাধীনতা অপরিহার্য। স্বাধীনতা লাভের মাধ্যমে পরাধীনতার অবসান হলেও মানুষ অর্থনৈতিক ও সামাজিক মুক্তি অর্জন করে না।

১৯৭১ সালে আমাদের স্বাধীনতা অর্জিত হয়। হাজার বছরের ইতিহাসে বাঙালি প্রথম একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্রের মালিক হয়। অর্থনৈতিক ও সামাজিক মুক্তির সংগ্রাম শুরু হতেই সেই অগ্রযাত্রাকে থামিয়ে দেওয়া হয় ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির জনককে হত্যার মধ্য দিয়ে। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা ছিল সবাই মিলেমিশে একটি বহুমাত্রিক বহুবাচনিক উদার গণতান্ত্রিক সমাজ, যার মধ্য দিয়ে মানুষের মুক্তি আসবে। মুক্তি বলতে সব বঞ্চনা, বৈষম্য, শোষণ, সংকীর্ণতা, কূপমণ্ডূকতা, চেতনার দীনতা থেকে মুক্তিকে বুঝিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু। অর্থনৈতিকভাবে আমরা দ্রুত এগোচ্ছি।

এ বছরই আমরা অনুন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের তালিকায় নাম লেখাচ্ছি। ২০২১ সালে বিশ্বব্যাংকের নির্ধারিত মানের বিচারে মাথাপিছু ডলারের হিসাবে আমরা মধ্যম আয়ের দেশের তালিকায় স্থান পাব। ২০৪১ সালে আমরা উন্নত দেশে পরিণত হব, তবে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণের জন্য মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে দৃঢ়ভাবে না ধরলে এই উন্নয়ন টেকসই হবে না। বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনা আমাদের মুক্তির সংগ্রামে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। মুক্তির সংগ্রাম চলে নিরন্তর। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মানুষের মুক্তির সংগ্রাম অব্যাহত থাকুক, এটাই আজকের প্রত্যাশা।

লেখক : কলামিস্ট ও উপাচার্য, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

বিপি/আর এল


এই বিভাগের আরও সংবাদ