Menu

সর্বশেষ


জবি থেকে সংবাদদাতা : ভাষা শহীদদের সন্মান প্রদর্শনের উদ্দেশে নির্মিত শহীদ মিনার । শহীদ মিনারে জুতা পায়ে উঠে ভাষা শহীদদের অসন্মান করার অভিযোগ উঠেছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক সভাপতি শরিফুল ইসলামের বিরুদ্ধে । তিনি বর্তমানে ওয়ারী থানা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ।

এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিন্দা এবং ক্ষোভ জানিয়েছেন অনেকে। ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও থানা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হয়েও কিভাবে জুতা পায়ে শহীদ মিনারে উঠে, এটা নিয়ে অনেকে প্রশ্ন করেছেন । শরিফুল ইসলাম এর আগেও ২০১৬ সালে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি থাকাকালীন শহীদ মিনারে জুতা পায়ে সাক্ষাতকার দিয়েছিলেন। তখন এই বিষয়টি নিয়ে অনেক সমালোচনা হয়েছিল ।

নাম না প্রকাশ করার শর্তে ছাত্রলীগের সাবেক নেতা বলেন, এমন কাজ তার কাছে কেউ আশা করেনা । একজন নেতা এমন কাজ করলে তার কাছে তার কর্মীরা কি শিখবে? একজেন নেতার ম্যানার এমন হলে তার কর্মীদের অবস্থা তাহলে ভাবেন একবার । ভাইরাল হওয়া ছবিতে দেখা যায়, জুতা পায়ে সমাবর্তনে অংশগ্রহনকারী শিক্ষার্থীদের সাথে ফটোশেসনে অংশ নিয়েছেন তিনি । তবে ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ছেলেটিকে চেনেনা বলে জানান । এ বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালের প্রগতিশীল সংগঠনের কর্মী ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শরিফুল ইসলাম বলেন, শহীদ মিনারে জুতা পায়ে ওঠা সব থেকে বড় ভুল । এটা অনেক আগের ছবি । সম্প্রতি এমন ছবি তোলা হয় নাই । তিনি আরো বলেন, যে ছেলের সাথে আমি ছবি তুলেছিলাম সেই ছেলেকে আমি চিনি না । ছবিটি সমাবর্তনের আগের তোলা বললে , তিনি সাংবাদিকের ব্যাক্তিগত পরিচয় জানতে চান ।

উল্লেখ্য, প্রথম সমাবর্তন উপলক্ষে ১৮হাজার ৩১৭ জন সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থীদের মিলনমেলায় পরিনত হয়েছিল জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ।

বিপি/আর এল


এই বিভাগের আরও সংবাদ