Menu

সর্বশেষ


জবি থেকে সংবাদদাতা : আগামী ১১ জানুয়ারী অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের(জবি) ১ম সমাবর্তন । বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠ (ধূপখোলা মাঠ)-এ সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হবে। প্রায় ১৯ হাজার গ্র্যাজুয়েট শিক্ষার্থীবৃন্দের অংশগ্রহণে সমাবর্তনটি অনুষ্ঠিত হবে। সমাবর্তনের অনুষ্ঠানসূচী প্রকাশ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন । বুধবার(৮ জানুয়ারী) বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ তথ্য ও প্রকাশনা দপ্তর থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয় ।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বাংলাদেশ সরকারের রাষ্ট্রপতির অনুমোদনক্রমে আগামী শনিবার(১১ জানুয়ারি) জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম সমাবর্তনের দিন নির্ধারণ করা হয়েছে। ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠানটি ভাষা আন্দোলন, ছয় দফা, এগার দফা, মহান মুক্তিযুদ্ধ সহ আরো অনেক আন্দোলনের সূতিকাগার।

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর জনাব মোঃ আবদুল হামিদ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকার সদয় সম্মতি জ্ঞাপন করেছেন। এছাড়াও উক্ত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি এম পি। সমাবর্তন বক্তা হিসেবে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের প্রফেসর ইমেরিটাস ড. অরুণ কুমার বসাক গ্র্যাজুয়েটদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য প্রদান করবেন। সমাবর্তনে আমন্ত্রিত জাতীয় সংসদের স্পিকার, মন্ত্রীবর্গ, সংসদ সদস্যবৃন্দ, সিনিয়র সচিবগণ, বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও অন্যান্য শিক্ষকবৃন্দ, বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার প্রতিনিধিদলসহ আমন্ত্রিত অন্যান্য সুধীবৃন্দ উপস্থিত থাকবেন।

বিজ্ঞপ্তিতে আরো জানানো হয়, অনুষ্ঠানসূচির মধ্যে রয়েছে শনিবার(১১ জানুয়ারি) সকাল ১১.৫৫ মিনিটে সমাবর্তন শোভাযাত্রা, ১২.০০ টায় রাষ্ট্রপতির আগমন ও জাতীয় সংগীত, দুপুর ১২.০১ মিনিটে সমাবর্তনের উদ্বোধন ঘোষণা ও দুপুর ১.১০ মিনিটে সমাবর্তনের সমাপ্তি ঘোষণা করবেন চ্যান্সেলর।

এছাড়াও সমাবর্তন অনুষ্ঠান শেষে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশেষ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজিত হবে। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে দুপুর ৩টায় নাট্যকলা বিভাগের শিক্ষার্থীদের নির্দেশনায় ৫টি নাটক ধারাবাহিকভাবে কেন্দ্রীয় মিলনায়তনে মঞ্চায়িত হবে একইসাথে বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন বিল্ডিং এর নীচতলায় চিত্রপ্রদর্শনী আয়োজন হবে, বিকাল ৪টায় সংগীত বিভাগের উদ্যোগে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান কলা ভবন সংলগ্ন কাঠালতলায় এবং বিকাল ৫টায় বিশিষ্ট্য সংগীত শিল্পী বাপ্পা মজুমদারের গানের কনসার্ট অনুষ্ঠিত হবে।

লক্ষ্যনীয়, সমাবর্তন স্থলে আগতদের আমন্ত্রণপত্রটি সঙ্গে আনতে হবে। প্রবেশের সময় জাতীয় পরিচয়পত্র বা পাসপোর্ট বা প্রতিষ্ঠান কর্তৃক প্রদত্ত পরিচয়পত্র আনতে হবে। মোবাইল ফোন, হ্যান্ডব্যাগ, ব্রিফকেস, ক্যামেরা, ছাতা ও পানির বোতল বা অন্য কোন ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস সঙ্গে নিয়ে অনুষ্ঠানস্থলে প্রবেশ করা যাবে না। গ্র্যাজুয়েট ও আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ ১নং গেইট দিয়ে সমাবর্তন স্থলে প্রবেশ করবেন।

তাঁদের জন্য সকাল ১০:০০টায় গেইট খোলা হবে এবং তাঁরা সকাল ১১:০০টার মধ্যে অবশ্যই সমাবর্তনস্থলে আসন গ্রহণ করবেন। মাননীয় চ্যালেন্সর শোভাযাত্রা প্যান্ডেলে প্রবেশের সময় থেকে মাননীয় চ্যান্সেলর মঞ্চে আসন গ্রহণ না করা পর্যন্ত অতিথিবৃন্দসহ সমাবর্তনে অংশগ্রহণকারী সকল অনুগ্রহপূর্বক নিজ নিজ আসনের সামনে দাঁড়িয়ে থাকবেন। চ্যান্সেলর কর্তৃক সমাবর্তন অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণার পর মাননীয় চ্যান্সেলর শোভাযাত্রা সমাবর্তনস্থল ত্যাগ না করা পর্যন্ত সবাই অনুগ্রহপূর্বক নিজ নিজ আসনে অবস্থান করার জন্য জানো হয়।

বিপি/ আর এল