Home বাংলাদেশরংপুর সৈয়দপুর ষ্টেশনে টিকিট কালোবাজারি সিএনএস কোম্পানীর কর্মচারী বিদ্যুৎ আটক

সৈয়দপুর ষ্টেশনে টিকিট কালোবাজারি সিএনএস কোম্পানীর কর্মচারী বিদ্যুৎ আটক

by bnbanglapress


এম আর আলী টুটুল, সৈয়দপুর নীলফামারী প্রতিনিধি : নীলফামারীর সৈয়দপুরে ২৩ জুন শনিবার সন্ধ্যা ৭টায় রেলওয়ে ষ্টেশন থেকে কালোবাজারে ট্রেনের টিকিট বিক্রির সময় বিভিন্ন আন্তঃনগর ট্রেনের ৯টি টিকিটসহ স্টেশনে কর্মরত এক যুবককে আটক করেছে রেলওয়ে থানা পুলিশ। আটক যুবকের নাম মো: মোকছেদুল ইসলাম বিদ্যুৎ। সে রেলওয়ে ষ্টেশনে টিকিট প্রসেসিং কাজে নিয়োজিত কম্পিউটার নেটওয়ার্ক সিসটেম লিমিটেড (সিএনএস) কোম্পানীর স্থানীয় প্রতিনিধি এবং এই ষ্টেশনেরই অবসরপ্রাপ্ত টিকিট বুকিং ক্লার্ক ও শহরের বাঁশবাড়ী মহল্লার বাসিন্দা মো: মোশাররফ হোসেনের পুত্র।

জানা যায়, সৈয়দপুর রেলওয়ে স্টেশনে একটি সিন্ডিকেট দীর্ঘদিন থেকে টিকিট কালোবাজারি করে আসছে। স্টেশনে কর্মরত রেলওয়ে কর্মচারীসহ সিএনএস এর দায়িত্বরত প্রতিনিধিরা কৌশলে অনলাইন বিক্রির অজুহাতে স্টেশনে প্রদর্শিত মনিটরে টিকিট নেই বলে যাত্রীদের ধোকা দেয়। আর সেই টিকিটি কিছু অসাধু রেলওয়ে কর্মচারী ও বহিরাগত ব্লাকারদের মাধ্যমে অতিরিক্ত টাকায় কালোবাজারে বিক্রি করে। মনিটরে টিকিট শেষ দেখালেও অতিরিক্ত টাকা দিলেই বুকিং কাউন্টারে অবস্থানরতদের মাধ্যমেই টিকিট পাওয়া যায়। এর ফলে গ্রাহকরা নির্ধারিত মূল্যে প্রয়োজনীয় টিকিট না পেয়ে চরম দূর্ভোগে পরে। সব সময়ই এ অবস্থা বিরাজ করে সৈয়দপুর রেলওয়ে স্টেশনে। বিশেষ করে ঈদসহ বিভিন্ন উৎসবের সময় এ পরিস্থিতি প্রকোট আকার ধারণ করে। এ নিয়ে পত্র পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ পেলেও কর্তৃপক্ষ নির্বিকার থাকায় ভোগান্তি থেকে রেহাই পাচ্ছিল না সাধারণ মানুষ।এমতাবস্থায় সাধারণ যাত্রীসহ বিভিন্ন সংগঠনের উদ্যোগে স্টেশনের প্লাট ফরমে মানববন্ধন কর্মসূচীও পালিত হয়েছে। এর প্রেক্ষিতে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ কয়েকদিন থেকে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করছে। তারপরও সিন্ডিকেটটি কালোবাজারি বন্ধ করেনি। ফলে আজ টিকিটসহ হাতে নাতে ধরা খেলো এই যুবক। তার কাছ থেকে ঢাকাগামী আন্ত:নগর ট্রেন নীলসাগর এক্সপ্রেস ট্রেনের ৭টি ও রাজশাহীগামী বরেন্দ্র এক্সপ্রেস ট্রেনের ২টি টিকিট জব্দ করা হয়।
আটক যুবককে সৈয়দপুর রেলওয়ে থানায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাকে সৈয়দপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট পরিমল কুমার সরকারের ভ্রাম্যমান আদালতে উপস্থিত করলে আদালত তাকে ভোক্তা অধিকার আইনের ৪৪ ধারায় ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ৭ দিনের জেল প্রদান করেন। পরে বিদ্যুৎ নগদ টাকা জরিমানা দিয়ে এ যাত্রায় রক্ষা পায়। টিকিট কালোবাজারি সিন্ডিকেটের সদস্য বিদ্যুৎ আটক হলেও ধরাছোয়ার বাইরে থেকে যায় রাঘব বোয়ালরা।

এসব মুল হোতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানান ভুক্তভোগিরা।এ ব্যাপারে সৈয়দপুর রেলওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ মো: এমদাদুল হকের সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি জানান, অনেক দিন থেকেই স্টেশনে টিকিট কালোবাজারির কথা শুনছিলাম। আমি নতুন এসেছি তাই সিন্ডিকেটের হোতাদের বিষয়ে অবগত ছিলাম না। এখন বিশেষ অভিযান পরিচালিত হওয়ায় থলের বিড়াল বেড়িয়ে আসছে। আগামীতেও আমাদের অভিযান অব্যাহত থাকবে এবং এর সাথে যারাই জড়িত থাক না কেনো কারোই রেহাই নেই।

বাংলাপ্রেস/আর এল

You may also like

Leave a Comment

কানেকটিকাট, যুক্তরাষ্ট্র থেকে প্রকাশিত বৃহত্তম বাংলা অনলাইন সংবাদপত্র

ফোন: +১-৮৬০-৯৭০-৭৫৭৫   ইমেইল: bpressusa@gmail.com
স্বত্ব © ২০১৫-২০২৩ বাংলা প্রেস | সম্পাদক ও প্রকাশক: ছাবেদ সাথী