Menu

সর্বশেষ
সর্বশেষ


বাংলাপ্রেস ডেস্ক: করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন কণিকা কাপুর। কিন্তু গায়িকার দেহে সত্যিই করোনা বাসা বেঁধেছিল কিনা, তা নিয়ে তৈরি হয়েছিল বিতর্ক। কিন্তু মঙ্গলবার কণিকা কাপুরের দ্বিতীয়বার সোয়াব টেস্টের রিপোর্ট আসে। সেই পরীক্ষাতেও গায়িকার শরীরে করোনার সন্ধান মেলে।

দিনকয়েক আগে বলিউড গায়িকা কণিকা কাপুরের শরীরে Covid-19-এর সন্ধান মেলে। ৪১ বছরের এই গায়িকা কিছুদিন আগে লন্ডনে গিয়েছিলেন। ১৫ মার্চ তিনি দেশে ফেরেন। কিন্তু বিদেশ থেকে ফিরে কোয়ারেন্টাইনে যাননি তিনি। উলটে লখনউয়ের একটি পাঁচতারা হোটেলে একটি পার্টির আয়োজন করেন। সেখানে নিমন্ত্রিত ছিলেন অনেক তাবড় ব্যক্তিত্ব। এরপরই তাঁর শরীরে Covid-19-এর সন্ধান মেলে। লখনউয়ের কিং জর্জ মেডিক্যাল ইউনিভার্সিটি হাসপাতালে তাঁকে ভরতি করা হয়। এরপরই তাঁর বিরুদ্ধে নোভেল করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ে একটি অনুষ্ঠানে হাজির থাকার অভিযোগ ওঠে। ফলে তাঁর বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধি ২৬৯, ২৭০ ও ১৮৮ ধারায় মামলা রুজু করেছে উত্তরপ্রদেশের সরোজিনী নগর থানার পুলিশ। পুলিশের কাছে কণিকা কপুরের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন লখনউয়ের এক স্বাস্থ্য আধিকারিক।

কিন্তু কণিকা কাপুরের সোয়াব পরীক্ষার রিপোর্টের উপর প্রশ্ন তোলেন তাঁর পরিবার। তাঁদের দাবি, যে স্বাস্থ‌্য রিপোর্টে কণিকাকে করোনা পজিটিভ বলে সাব‌্যস্ত করা হয়েছে, সেখানে তাঁর বয়স লেখা আছে ২৮ বছর। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে কণিকার বয়স ৪১ বছর। শুধু তাই নয়। রিপোর্টে গায়িকার লিঙ্গও ভুল উল্লেখ আছে। ‘মহিলা’-র জায়গায় ‘পুরুষ’ লেখা আছে। আর এই তথ‌্য সামনে রেখেই গায়িকার পরিবার দাবি করেছে, হতে পারে এই রিপোর্ট গায়িকার নয়। বরং অন‌্য কারও। কোনওভাবে রিপোর্ট অদলবদল হয়ে থাকতে পারে। এরপর সঞ্জয় গান্ধী পোস্ট গ্র্যাজুয়েট ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্সে গায়িকার সোয়াব পরীক্ষা করা হয়। সেখানেও তাঁর শরীরে করোনার সন্ধান মেলে।

তবে গায়িকার অবস্থা এখন অনেকটাই স্থিতিশীল। যাঁরা কণিকার সংস্পর্শে এসেছিলেন, তাঁদের কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে। যে পার্টিতে কণিকা অংশ নিয়েছিলেন, সেখানে উপস্থিত ছিলেন রাজস্থানের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বসুন্ধরা রাজে ও তাঁর ছেলে দুষ্মন্ত সিং। যদিও পরীক্ষায় তাঁরা দু’জনেই করোনা নেগেটিভ সাব‌্যস্ত হয়েছেন। এছাড়া কণিকার সঙ্গে রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ, তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন-সহ অনেকের সঙ্গেই সাক্ষাৎ করেন। ফলে কণিকা কপুরের করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়ার পর থেকে নিজেদের গৃহবন্দি করে হোম কোয়ারেন্টাইনে চলে গিয়েছেন সকলেই। রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ নিজের সমস্ত কাজ বাতিল করে দিয়েছেন।

বিপি/আর এল


Leave a Comments

avatar
  Subscribe  
Notify of

সর্বশেষ সংবাদ