নিউ ইয়র্কে সাহিত্য একাডেমির জমকালো প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী



নিজস্ব প্রতিবেদক, নিউ ইয়র্ক: নিউ ইয়র্কে জমকালো পরিবেশে সাহিত্য একাডেমির ষষ্ঠ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত হয়েছে। গত শুক্রবার সন্ধ্যায় নিউ ইয়র্কের এস্টোরিয়ার ক্লাব সনমে আয়োজন করা হয় বর্ণাঢ্য এক অনুষ্ঠানের। স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী একুশে পদকপ্রাপ্ত ও

মুক্তিযোদ্ধা রথীন্দ্রনাথ রায় এবং একুশে পদকপ্রাপ্ত নাট্য ব্যক্তিত্ব জামাল উদ্দিন হোসেনকে ৬ষ্ঠ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে সম্মাননা জানানো হয়।
প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানের আগে বিকাল ৫টা থেকে সাহিত্য একাডেমির ৭৩তম সভা অনুষ্ঠিত হয় ক্লাব সনমে। এতে ছিল স্বরচিত কবিতা পাঠের আসর। এ পর্বটি পরিচালনা করেন কবি কাজী আতিক। ছড়া পাঠ পর্ব পরিচালনা করেন মনজুর কাদের। এরপর শুরু হয় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর পর্ব। শুরুতেই স্বাগত বক্তব্য দেন বিশিষ্ট লেখক ও সাহিত্যানুরাগী ফেরদৌস সাজেদীন। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন 

নিউ ইয়র্কে বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল মো. শামীম আহসান, সঙ্গীতজ্ঞ মুত্তালিব বিশ্বাস, নারীনেত্রী  ও কবি নূরজাহান কাদের, সাপ্তাহিক ঠিকানার প্রধান সম্পাদক মুহম্মদ ফজলুর রহমান, সাংবাদিক ও কলামিস্ট হাসান ফেরদৌস, কবি নীরা কাদরী, বাংলাদেশ সোসাইটির নবনির্বাচিত সভাপতি কামাল আহমেদ ও বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ও নবনির্বাচিত সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুর রহিম হাওলাদার, বিশিষ্ট আইনজীবী নাসরিন আহমেদ, ক্লাব সনমের স্বত্বাধিকারী  ও সংস্কৃতিসেবী খন্দকার তওফিক কাদের (ক্যান কাদের), রানু ফেরদৌস, বাংলাদেশ সোসাইটির সাবেক সহ-সাধারণ সম্পাদক সিরাজ উদ্দিন সোহাগ, লেখক ও রাজনতিবিদ আলী ইমাম শিকদার, বিপার সাবেক সভাপতি এ্যানি ফেরদৌস, ব্রঙ্কস বাফা’র প্রেসিডেন্ট ফরিদা ইয়াসমিন, অধ্যাপিকা হুসনে আরা বেগম, বাংলাদেশ সোসাইটির সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি ওয়াসি চৌধুরী প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে কবিতা আবৃত্তি করেন শামস আল-মমিন, ফকির ইলিয়াস, হাসানআল আব্দুল্লাহ, তমিজ উদ্দিন লোদী, পারভীন সুলতানা, শুক্লা রায়। এছাড়া সঙ্গীত পরিবেশন করে শ্রোতাদের মুগ্ধ করেন শিল্পী নিপা জামান। অনুষ্ঠানে নৃত্য পরিবেশন করে ব্রঙ্কস বাফা’র শিল্পী।অনুষ্ঠানে একঝাঁক শিশু ছড়াপাঠে অংশ নেয়। এতে অংশ নেয় আশরাফ অসীম, আশরাফ আহমেদ, তাসরিফ রুবাইয়াত কৈশী, নুসরাত তাবাসুম, লিওনা মুহিত, নূহা কাওসার, জারি মাইশা। এছাড়া তপন মোদকের সঙ্গতে ছড়া পাঠ করেন প্রবাসের জনপ্রিয় বাচিক শিল্পী মুমু আনসারী। এ পর্বটি পরিচালনা করেন বিশিষ্ট ছড়াকার মনজুর কাদের। পুরো অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সংস্কৃতী কর্মী সেমন্তী ওয়াহেদ।  তাকে সহযোগিতা করেন সাহিত্য একাডেমির পরিচালক মোশররফ হোসেন।অনুষ্ঠানে কনসাল জেনারেল মো. শামীম আহসান সাহিত্য একাডেমির উত্তরোত্তর সাফল্য কামনা করে বলেন, সাহিত্যের প্রতি প্রবাসীদের ভালবাসা আছে বলেই আজকের অনুষ্ঠানে এই বিপুল উপস্থিতি। তিনি শিশু-কিশোরদের ছড়ার পর্বটির প্রশংসা করে বলেন, আমি আশান্বিত হয়েছি এ প্রজন্মের শিশুদের পরিবেশনা দেখে। এ জন্য তিনি অংশগ্রহণকারী শিশুদের অভিভাবকেদের অভিনন্দন জানান তাদের সন্তানদের এ পর্যায়ে নিয়ে আসার জন্য। তিনি বলেন, এসব শিশুরা ইংরেজি মাদ্যমে পড়াশোনা করেও বাংলা সাহিত্য চর্চা করে যাচ্ছে। তিনি সাহিত্য একাডেমির অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখার আহ্বান জানান।

স্বাগত বক্তব্যে ফেরদৌস সাজেদীন বলেন, সাহিত্য একাডেমি সবার ভালবাসায় সিক্ত। আজকের উপস্থিতি প্রমাণ করে প্রবাসীরা সাহিত্যকে ভালবাসেন, সংস্কৃতিকে ভালবাসেন। তাদের হৃদয়ে সাহিত্যের প্রতি ভালবাসা আছে বলেই তারা শত ব্যস্ততার মাঝেও আজকের অনুষ্ঠানে এসেছেন।অনুষ্ঠানে বিপুল উপস্থিতির জন্য সবার প্রতি ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন সাহিত্য একাডেমির পরিচালক মোশাররফ হোসেন।
স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী একুশে পদকপ্রাপ্ত ও মুক্তিযোদ্ধা রথীন্দ্রনাথ রায় এবং একুশে পদকপ্রাপ্ত নাট্য ব্যক্তিত্ব জামাল উদ্দিন হোসেনকে সম্মাননা জানানোর আগে তাঁদের জীবনী পড়ে শোনান কবি মিশুক সেলিম ও নাসরিন চৌধুরী। সম্মাননা প্রদান করায় আয়োজকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান রথীন্দ্রনাথ রায় ও জামাল উদ্দিন হোসেন।